০১:২২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আগামীকাল ১১ জুন জননেতা মাহবুবুল আলমের ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী

আগামীকাল ১০ জুন শনিবার মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ নবীনগর উপজেলা শাখার সাবেক সফল সভাপতি জননেতা প্রয়াত মাহবুবুল আলমের ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী।

প্রয়াত মাহবুবুল আলম ১৯৪৮ সালের ২১ অক্টোবর নবীনগর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০০৮ সালের ১০ জুন শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি ১৯৬৪ সালে নবীনগর উচ্চবিদ্যালয় থেকে মেট্রিক, ১৯৬৭ ও ’৬৯ সালে ভৈরব হাজী আসমত কলেজ থেকে আই,কম এবং বি,কম পাশ করেন। ১৯৬২ সালের কুখ্যাত হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন রিপোর্টের বিরুদ্ধে আন্দোলনে ছাত্রজীবনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৬৪ সালে তিনি ব্রাহ্মণবাড়ীয়া কলেজে ভর্তি হন। ’৬৫ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজ থেকে চলে যান ভৈরব আসমত আলী কলেজে। ভর্তি হয়েই জড়িয়ে পড়েন ছাত্র রাজনীতিতে। ১৯৬৫ সালে হাজী আসমত আলী কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য ও ’৬৮ সালে সহ-সভাপতি এবং ’৬৯ সালে কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৭০ সালে তিনি নবীনগর থানা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৭২-৭৩ সালে নবীনগর থানা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক ও ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মনোনীত হন। ১৯৭৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর জরুরী আইনে গ্রেপ্তার হন এবং ’৭৭ সালের ২৮ মে মুক্তি লাভ করেন। ’৭৯ সালে নবীনগর থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৮২ সালের ২২ জুন তিনি পুনরায় গ্রেপ্তার হন এবং ’৮৩ সালের ১৭ মার্চ মুক্তি পান। ১৯৮১ সালে নবীনগর থানা কৃষক সমবায় সমিতির সভাপতি ও ’৮৫ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমবায় ব্যাংকের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৮৪ সালে নবীনগর থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও ১৯৯২ সালে নবীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। মাহবুবুল আলম বিভিন্ন মেয়াদে নবীনগর পইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও বালিকা উচ্চ দ্যিালয়ের ম্যনেজিং কমিটির নির্বাচিত সদস্য ও সহ-সভাপতি ছিলেন।

তাঁর ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মাহবুবুল আলম স্মৃতি সংসদের পক্ষ থেকে ১০ জুন নবীনগর উপজেলার দৌলতপুর মার্কেট প্রাঙ্গনে ব্যাপক কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্য রয়েছে কোরআন খতম, ফাতেহা পাঠ, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল। সকল কার্যক্রমে সর্বস্তরের জনসাধারণকে উপস্থিত থাকার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন মাহবুবুল আলম স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক এম. নাঈমুর রহমান।

Facebook Comments Box
ট্যাগ :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

সম্পাদনাকারীর তথ্য

Dipu

❅ জনপ্রিয়

আগামীকাল ১১ জুন জননেতা মাহবুবুল আলমের ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী

আপডেট : ০৪:৫৩:০৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ জুন ২০২৩

আগামীকাল ১০ জুন শনিবার মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ নবীনগর উপজেলা শাখার সাবেক সফল সভাপতি জননেতা প্রয়াত মাহবুবুল আলমের ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী।

প্রয়াত মাহবুবুল আলম ১৯৪৮ সালের ২১ অক্টোবর নবীনগর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০০৮ সালের ১০ জুন শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি ১৯৬৪ সালে নবীনগর উচ্চবিদ্যালয় থেকে মেট্রিক, ১৯৬৭ ও ’৬৯ সালে ভৈরব হাজী আসমত কলেজ থেকে আই,কম এবং বি,কম পাশ করেন। ১৯৬২ সালের কুখ্যাত হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন রিপোর্টের বিরুদ্ধে আন্দোলনে ছাত্রজীবনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৬৪ সালে তিনি ব্রাহ্মণবাড়ীয়া কলেজে ভর্তি হন। ’৬৫ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজ থেকে চলে যান ভৈরব আসমত আলী কলেজে। ভর্তি হয়েই জড়িয়ে পড়েন ছাত্র রাজনীতিতে। ১৯৬৫ সালে হাজী আসমত আলী কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য ও ’৬৮ সালে সহ-সভাপতি এবং ’৬৯ সালে কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৭০ সালে তিনি নবীনগর থানা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৭২-৭৩ সালে নবীনগর থানা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক ও ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মনোনীত হন। ১৯৭৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর জরুরী আইনে গ্রেপ্তার হন এবং ’৭৭ সালের ২৮ মে মুক্তি লাভ করেন। ’৭৯ সালে নবীনগর থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৮২ সালের ২২ জুন তিনি পুনরায় গ্রেপ্তার হন এবং ’৮৩ সালের ১৭ মার্চ মুক্তি পান। ১৯৮১ সালে নবীনগর থানা কৃষক সমবায় সমিতির সভাপতি ও ’৮৫ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমবায় ব্যাংকের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৮৪ সালে নবীনগর থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও ১৯৯২ সালে নবীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। মাহবুবুল আলম বিভিন্ন মেয়াদে নবীনগর পইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও বালিকা উচ্চ দ্যিালয়ের ম্যনেজিং কমিটির নির্বাচিত সদস্য ও সহ-সভাপতি ছিলেন।

তাঁর ১৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মাহবুবুল আলম স্মৃতি সংসদের পক্ষ থেকে ১০ জুন নবীনগর উপজেলার দৌলতপুর মার্কেট প্রাঙ্গনে ব্যাপক কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্য রয়েছে কোরআন খতম, ফাতেহা পাঠ, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল। সকল কার্যক্রমে সর্বস্তরের জনসাধারণকে উপস্থিত থাকার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন মাহবুবুল আলম স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক এম. নাঈমুর রহমান।

Facebook Comments Box